টেকনাফের দিদারের জালে ১৭ মণ ছুরি মাছ, সাড়ে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি

কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলের সাগরে একবার জাল ফেলে ১৭ মণ ছুরি মাছ পেয়েছেন জেলে দিদার। মাছগুলো বিক্রি করে সাড়ে তিন লাখ টাকা পেয়েছেন বলে জানান তিনি। বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

একদিনেই লাখপতি বনে গেলেন টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের হলবনিয়া গ্রামের জেলে দিদার চৌধুরী। তিনি জানান, অন্যান্য দিনের মতো ঐদিন সকালে জাল নিয়ে সাগরে মাছ ধরতে যান তিনি। একবার জাল ফেলেই পেলেন ১৭ মণ ছুরি।

জালে একসঙ্গে পাওয়া বিপুল পরিমান ছুরি মাছগুলো দিয়ে ঐদিন বিকেলে বাহারছড়ার হলবনিয়া সমুদ্র সৈকতে পাঁচটি স্তূপ করা হয়। সেখানে মোট ১৭ মণ মাছ পাওয়া যায়, যা তিন লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। মাছ ব্যবসায়ীরা জানান, কক্সবাজার ও টেকনাফের মাছ ব্যবসায়ীরা যৌথভাবে ১৭ মণ ছুরি মাছগুলো কিনে নেন।

এ মাছের শুঁটকির প্রচুর চাহিদা রয়েছে। মাছগুলো থেকে শুঁটকি তৈরি করে বাজারজাত করার পরিকল্পনা ব্যবসায়ীদের। টেকনাফ উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরের মাছ খুবই সুস্বাদু। একেকটি ছুরি মাছ সাধারণত এক কেজি পর্যন্ত ওজনের হয়।

ছোট ছুরি মাছ রোদে শুকিয়ে শুঁটকি বানিয়ে খেলে স্বাদ বেশি হয়। সাধারণত একসঙ্গে এত ছুরি মাছ জেলেদের জালে ধরা পড়েনা। প্রজনন মৌসুমসহ সরকারি বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা মেনে চলায় সাগরে বিপুল পরিমাণ মাছ জেলের জালে ধরা পড়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.