ফিঙ্গারপ্রিন্টে পরিচয় মিললো আগুনে নিহত সাংবাদিক বৃষ্টির

রাজধানীর বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত সাংবাদিক অভিশ্রুতি শাস্ত্রীর আসল নাম বৃষ্টি খাতুন বলে জানা গেছে। বৃষ্টির ফেসবুকে নাম ছিল অভিশ্রুতি শাস্ত্রী। তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার বেতবাড়ীয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বনগ্রাম গ্রামের প‌শ্চিমপাড়ায়। বাবার নাম সবুজ শেখ, মা বিউটি বেগম।
শুক্রবার (১ মার্চ) গণমাধ্যমে ২৪ বছর বয়সী এ নারী সাংবাদিকের মৃত্যুর সংবাদ প্রকাশ হয়। সেখানে তার নাম জানানো হয় অভিশ্রুতি শাস্ত্রী।
পরে কলেজের সার্টিফিকেট, জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্রে অভিশ্রুতি শাস্ত্রীর নাম বৃষ্টি খাতুন উল্লেখ রয়েছে বলে জানান তার মা বিউটি বেগম।
বৃষ্টির মা বিউটি বেগম ও তার খালা সাবানা খাতুন বলেন, বৃষ্টি হিন্দুধর্ম গ্রহণ করেছে কি না জানি না। সে আমাদের মুসলিম পরিবারের সদস্য। সার্টিফিকেট, জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্রে তার নাম বৃষ্টি খাতুন। তার মরদেহ আমরা গ্রামের বাড়িতে দাফন করবো। বৃষ্টি যত ভুলই করুক না কেন, আমাদের সন্তান আমরা দাফন করবো।
শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে দায়িত্বরত পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল জব্বার জাগো নিউজকে জানান, ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে অভিশ্রুতির প্রকৃত পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে।
পরিচয় নিশ্চিত হতে শুক্রবার ওই সাংবাদিকের ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিয়ে পরীক্ষা করা হয়। তাতে দেখা যায়, এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্রে তার নাম বৃষ্টি খাতুন লেখা আছে। বাবার নাম সবুজ শেখ আর মায়ের নাম বিউটি বেগম।
জানা গেছে, তিন বোনের মধ্যে বৃষ্টি সবার বড়। তার মেজো বোন ঝর্না ও ছোট বোন বর্ষা। তাদের বাবা সবুজ শেখ এবং মা বিউটি বেগম ইসলাম ধর্মের অনুসারী।

Leave A Reply

Your email address will not be published.